অন্য এক কবিতাকার্নিশ : সিকদার আমিনুল হকের কবিতা



… রাতে উঠল ক্ষুদ্র চাঁদ। সকলের একসঙ্গে গান,
লণ্ঠন ঝোলানো গোলটেবিলের চারপাশে দেখি
অরুণা, কাজল, শম্পা। মুরগি রান্না হচ্ছে তার গন্ধে
আবার ঘুমিয়ে পড়ি। — শিকারীর হাতে পাতা ঝরে।
ঈশ্বর দুধারে থাকে; এর ফলাফল অনিশ্চিত।
দুপুরে রৌদ্রের জিহ্বা, রাতে দেখি পরিষ্কার চাঁদ।

ষাটের দশকে বাংলা কবিতায় এক অনিঃশেষ কাব্যপ্রতিভার নাম সিকদার আমিনুল হক। বৈপরীত্যের এমন প্রকাশভঙ্গি পূর্ববর্তী এবং সমসাময়িক কবিদের মধ্যে দেখা যায়নি। এযেন জীবনের আলো-আঁধারের কথা বলে যাওয়া। তাঁর কবিতাসত্যিই ভিন্ন উচ্চারণের অন্য এক কবিতাকার্নিশ। কবিদের ভিড়ে স্বতন্ত্র্য এক কবি সিকদার আমিনুল  হক। তাঁর কবিতার আবহে সাজানো হয়েছিল সাহিত্যসংগঠন ‘গাঁথা’-র এবারের আয়োজন। ২০ জানুয়ারি, শনিবার, ধানমন্ডির ইএমকে সেন্টারে তাঁর কবিতাভুবন উন্মোচিত হলো। সভায় সামগ্রিকভাবে কবি সিকদার আমিনুল হকের কবিতাপ্রসঙ্গে আলোচনা করেছেন কবি ওবায়েদ আকাশ, কবি তুষার কবির, কবি জুনান নাশিত।

কবি ওবায়েদ আকাশ বলেছেন, সিকদার আমিনুল হকের গুরুত্ব ও স্বাতন্ত্র্য এখানেই যে স্বনির্মিত কাব্যভাষায় নির্মিত কবিতায় তাঁর সহজাত কাব্যপ্রতিভার বিকাশ ঘটেছে। লোরকা এবং অন্যান্য সিম্বলিস্ট কবিদের কবিতায় প্রভাবিত ছিলেন তিনি; ফলত, বাংলা ভাষায় সিকদারের কবিতা একইসঙ্গে রোম্যান্টিক, অতিবাস্তব এবং প্রতীকবাদী চরিত্র ধারণ করেছে। ওবায়েদ আকাশ তাঁর প্রকাশিত বই ‘প্রিয় কবিদের রন্ধনশালায়’ থেকে সিকদার আমিনুল হককে নিয়ে লেখা ‘প্রণম্য শব্দভাস্কর, আমার নিভৃত পাঠের কবি’ প্রবন্ধটি পাঠ করেন। তিনি বিশ্লেষণমূলক আলোচনা করে বলেন, আধুনিক মানবমনের জটিলতা, অস্তিত্বসংকট, ক্ষুধা, দারিদ্র্য, বিলাসিতা, নস্টালজিয়া সিকদারকবিতায় অনন্য দৃশ্যময় হয়ে উঠেছে। কবি ওবায়েদ আকাশ আরও উল্লেখ করেন, সিকদারের কবিতা নিবিড় সতর্কতায় চেতনাকে ধীরে ধীরে মুঠোবন্দী করে বাংলা কবিতার নতুন ধারায় গতিময়তা এনে দিয়েছে।

কবি তুষার কবির আলোচনা করেছেন সিকদার আমিনুল হকের কাব্যপ্রবণতা নিয়ে। মেধাদীপ্ত বিশ্লেষণে সিকদারের কবিতায় চিহ্নিত করেছেন — ইন্দ্রিয়আচ্ছন্নতা, ভ্রামণিক কাব্যপ্রতিবেশ, আন্তর্জাতিকতা, প্রতীকবাদ, পাশ্চাত্য অনুষঙ্গ, ফ্যাশনধর্মি ও স্টাইলিস্ট ভাষাশৈলী, মৃত্যুচিন্তা, ফরাসি কবিতার প্রভাব, নৈঃসঙ্গ্যচেতনা বা অ্যালিনিয়েশন, ইশারালিখন ও ইমেজের ব্যবহার! তুষার কবির তার শাণিত বক্তব্যে সিকদার আমিনুল হকের কবিতার ঋদ্ধ সারাৎসার তুলে ধরেন। সিকদার আমিনুল হককে নিয়ে তার দুটি প্রবন্ধ ‘তাহিতির মেঘ, হিস্পানি রুমাল’, ও ‘পাশ্চাত্যপীড়িত কবি’ থেকেও অংশবিশেষ পড়ে শোনান।

কবি জুনান নাশিত সিকদার আমিনুল হকের কবিতার ভাষা ও প্রকাশভঙ্গিতে আধুনিকতা অন্বেষণ করেছেন।  আলোচনায় তিনি স্মৃতিচারণ করেন এবং সিকদারের কবিতাপ্রসঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত অনুভূতি সম্পর্কে বলেন। বিভিন্ন কবিতার উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বাংলা কবিতায় সিকদার আমিনুল হকের প্রাসঙ্গিকতা এবং অনস্বীকার্যতা তুলে ধরেন।

প্রাসঙ্গিকভাবেই আলোচনায় এসেছে এবং প্রশংসিত হয়েছে সাহিত্যপত্রিকা ‘শালুক’-এর ‘স্বভাষায় সম্পন্ন পৃথিবীর কবি সিকদার আমিনুল হক’ সংখ্যা।

অনুষ্ঠানে সিকদার আমিনুল হকের নির্বাচিত কবিতা পাঠ করেছেন গাঁথার তিনজন প্রিয় সদস্য — কবি নাহার ফরিদ খান, কবি সুলতানা ফেরদৌসি এবং কবি নাহিদা আশরাফী।

গাঁথায় অতিথি হয়ে এসেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের দুজন কবি — ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত এবং ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত। গান শুনিয়ে মুগ্ধ করছেন কলকাতার নজরুলসংগীতশিল্পী সোমঋতা মল্লিক। সভায় উপস্থিত ছিলেন গাঁথার সভানেতা পাপড়ি রহমান, ইশরাত তানিয়া, মালেকা ফেরদৌস, মাশরুফা আয়েশা নুসরাত, সালমা তালুকদার, নাহিদ কায়সার, আফরোজা আখতার টিনা, সুলতানা ফেরদৌসী, শামীমা সুলতানা সহ  অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেছেন গাঁথার সাধারণ সম্পাদক জ্যাকী কবীর।

সিকদার আমিনুল হকের কবিতায় মহিমান্বিত হয়েছে বাংলার কবিতাজগৎ। বাংলাভাষার একজন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কবি সিকদার আমিনুল হককে বিনম্র শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করল গাঁথা কবিতাপাঠ ও আলোচনায়। আমাদের অন্তর্লোক অপূর্ব পল্লবিত হোক, আলোকিত হোক তাঁর কবিতায়।


1,005 Comments